দেশের কল্যান ও মুসলিম অধিকার আদায়ে হাসান আলীর ভূমিকা

51

 

হাসান আলীর পরিচয় : হবিগজ্ঞ জেলার, নবীগজ্ঞ উপজেলার , আউশকান্দি ইউনিয়নের উমর পুর গ্রামের পিতা মরহুম সিদ্দীক আলী ও মাতা চান বিবির ছেলে ৷
শিক্ষাঃ জালাল পুর প্রাইমারী স্কুল, সৈয়দ পুর বাজার ফাজিল মাদ্রাসা, আউশকান্দি হাই স্কুল থেকে মেট্রিক(১৯৭৬সাল) সিলেট এম সি কলেজ থেকে আই এস সি (১৯৭৭-১৯৭৮)৷নিউইয়র্কের Pace University ও St. John’s University থেকে বিজনেস ডিপ্লোমা (১৯৮৮-১৯৮৯)৷
বিদেশ গমনঃ – ১৯৭৯ জার্মানী ১৯৮২ সালে আমেরিকা, বর্তমানে আমেরিকার সিটিজেন হয়ে ৩৬ বছর ধরে নিউইয়র্কে স্ত্রী হাফসা বেগম ডেমোক্রেটিক পার্টির নির্বাচিত মেম্বার,মেয়ে মহসিনা হাসান( সেন্ট জন বিশ্ব বিদ্যালয়ে ফার্মাসি বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্রী) ছেলে মারজান হাসান (ফরডাম বিশ্ব বিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষের ফাইনেন্সের ছাত্র)।
মুসলিম কমিউনিটির অধিকার আদায়ঃ (১)১৯৯২ নিউইয়র্ক সিটিতে ৬ দিন ফ্রি পার্কিং বিল আদায় ৷
(২)২০১৫ সালে নিউইয়র্ক সিটির পাবলিক স্কুলে ২ দিন ঈদের ছুটি আদায় ৷ (৩)১৯৯২ সালে কংগ্রেসের সদর দপ্তর ক্যাপিটাল হিলে জুম্মার নামায আদায় (৪) ২০১২ সালে হোয়াইট হাউসে মূসলিম প্রতিনিধি নিয়োগ প্রচেষ্টা ৷ (৫)
বাংলাদেশ সহ এশিয়ান কমিউনিটির অধিকার রক্ষাঃ—–(১) ১৯৯১ সালে নিউইয়র্ক সিটির পুলিশ ডিপার্টমেন্টে এশিয়ান আমেরিকান এডভাইজারী কাউন্সিল গঠন করি, আমাকে কো-চেয়ারম্যান নিযুক্ত করা হয়(২)১৯৯৪ সালে নিউইয়র্ক সিটির কনজুমার্স ডিপার্টমেন্টে এশিয়ান আমেরিকান এডভাইজারী কাউন্সিলে কো-চেয়ারম্যান নিযুক্ত হই ৷(৩) ১৯৯৫ সালে নিউইয়র্ক সিটির হাইওয়ে সেফটি কমিশনে এশিয়ান আমেরিকান এডভাইজারী কাউন্সিলের অনারারী সদস্য (৪)১৯৯২ সালে কুইন্স ডিষ্টিক অফিসে এশিয়ান আমেরিকান এডভাইজারী কাউন্সিলের কো-চেয়ারম্যান(৫) ১৯৯২ সালে গভর্ণর মারিয়ো কমোর অফিসে এশিয়ান এফেয়ার্স গঠনে বিশেষ ভুমিকা রাখি ৷
বাংলাদেশকে সহায়তাঃ ১৯৯১ সালে বাংলাদেশে ঘূর্ণিঝড়ের সময় মেয়র ডেভিড ডিনকিন্সের সহায়তায় সিটি হলের ব্লু রুমে একটি প্রেস কনফারেন্স কল করে বাংলাদেশকে সাহায্যের আবেদন জানাই (২)২০০৫ সালে বাংলাদেশকে ডিউটি ফ্রি বানিজ্য সুবিধা দেওয়ার
জন্য কংগ্রেসে বিল H.R 886 উত্থাপন (দুঃখের বিষয় লবিং এর অভাবে বিলটি পাশ হয়নি) ৷(৩) ১৯৯৫ সালে বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে ফারাক্কার বিষয়ে জাতিসংঘের পরিবেশ কর্ম কর্তাদের দৃষ্টি আকর্ষন করি ৷(৪)২০০৩ সালে বাংলাদেশের নাম স্পেশাল রেজিষ্ট্রেশন থেকে বাদ দেওয়ার জন্য কংগ্রেসম্যান এলিয়ট এঙ্গেলের সাথে বৈঠক করি ৷(৫)২০০৫ সালে বাংলাদেশী আমেরিকানদের বিরুদ্ধে হেইট ক্রাইম প্রতিরোধে নিউইয়র্ক সিটির পুলিশ হেড কোয়ার্টারে হেইট ক্রাইম টাস্কফোর্সের সার্জেন্টের সাথে আলোচনা ৷(৬)২০০৫ সালে নিউইয়র্ক সিটির পাবলিক লাইব্রেরী মসোল ব্রাঞ্চে জাতির পিতা বঙ্গ বন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও কর্মর উপর ডিভিডি ও অনেকগুলি বই দান করি (৭)১৯৯১সালে নবেম্বর মাসে এষ্টোরিয়ায় চুরি ডাকাতি বৃদ্ধি পেলে ১১৪ নম্বর প্রিসেন্টের ক্যাপ্টেন মিঃ থমাসের সাথে একটি প্রতিনিধি দল নিয়ে নিরাপত্তার বিষয়ে আলোচনা করি৷(৮)নিউইয়র্ক সিটিতে বাংলা ভাষা প্রতিষ্টা( ১৯৯৪- ২০১৫)।
অন্যান্য কর্ম তৎপরতাঃ ১৯৯২ সালে প্রেসিডেন্ট পদ প্রার্থী বিল ক্লিন্টনের কনভেনশন কমিটির সদস্য ৷১৯৯৩ সালে প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটনের শপথ অনুষ্ঠানে যোগদান ৷১৯৯৬ সালে ডেমোক্রেটিক ন্যাশনাল ষ্টিয়িরিং ক্যাম্পেইন কমিটি ক্লিনটন/গোর এর সদস্য ৷ ১৯৯৬ সালে আমেরিকার ট্রেজারী সেক্রেটারী ( অর্থ মন্ত্রী) এশিয়ান আমেরিকান হেরিটেজ মাস উপলক্ষে তাহার মন্ত্রনালয়ে আমন্ত্রন জানান ৷২০০২ সালে নিউইয়র্ক স্টেট ডেমোক্রেটিক কাউন্টি কমিটির নির্বাচিত সদস্য ৷২০০৩ সালে কমিউনিটি বোর্ডের মেম্বার নিযুক্ত ৷ জাতিসংঘের এন জি ও(NGO) প্রতিনিধি নিযুক্ত( ১৯৯২-১৯৯৬) ৷২০০৮ সালে প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার অনারারী কিচেন কেবিনে মেম্বার ৷২০০৯ সালে প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার শপথ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রন৷ ১৯৯১ সালে আমেরিকান মাইনোরিটিদের অধিকার আদায়ে কংগ্রেসের ব্লাক ককাসের সহায়তায় জাতিসংঘের হিউমেন রাইট কমিশনারের সাথে আলোচনা যোগদান৷ ১৯৯১ সালে অর্গানাইজেশন অব বাংলাদেশী আমেরিকান্সের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ৷২০১৬ সালে আমেরিকান মুসলিম পলিটিকেল একশন কমিটির (AMPAC) কমিটির আহবায়ক ৷২০১৬ সালে আন্তর্জাতিক লেখক ফোরাম গঠন করি, কারন আমি যদি বিশ্বের শক্তিধর দেশে আমাদের অধিকার নিয়ে মেয়র, গভর্ণর, প্রেসিডেন্ট, কংগ্রেসম্যান ও সিনেটরের সাথে সবাইকে নিয়ে আলোচনা করে কিছু অধিকার আদায় করেছি এবং আগামীতে অন্যান্য অধিকার আদায়ে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাব ৷ প্রবাসে ও দেশে আমার ফেসবুক বন্ধুরা যে যেখানে বাস করেন সেখানে আপনাদের অধিকার আদায়ে মেম্বার, চেয়ারম্যান, উপজেলা চেয়ারম্যান,পৌরসভা চেয়ারম্যান, সিটি মেয়র, এম পি, মন্ত্রী, প্রধান মন্ত্রী ও প্রেসিডেন্টের সাথে মিটিং করে নাগরিকদের অধিকার আদায়ে সচেষ্ট হওয়ার আবেদন জানাচ্ছি ৷আমি একজন সাধারন নাগরিক হয়ে যদি অধিকার আদায় করতে পারি তবে আপনারা ও পারবেন ৷
২০০৬ সালে নিউইয়র্ক সিটি কাউন্সিল থেকে সমাজ সেবার স্বীকৃতি স্বরূপ Proclamation প্রদান করা হয় ৷
২০১৮ সালে স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানে নিউইয়র্ক স্টেটের এসেম্বলির পক্ষ থেকে ৩৬ বছরের কমিউনিটি সার্ভিসের জন্য প্রক্লেমেশন প্রদান করা হয় ৷
২০১২সালে বাংলাদেশের জাতিসংঘের স্হায়ী মিশন থেকে এম্বেসেডার ডঃ এ কে মোমেন , হাসান আলীকে বাংলাদেশের কল্যাণে কাজ করার জন্য সন্মাননা প্রদান করেন ৷৷ বাংলাদেশ পোয়েট্স ক্লাব ২০১৭ সালে ,সংগঠনের চেয়াম্যান জনাব মোস্তাফিজুর রহমান সন্মাননা প্রদান করেন ৷অনেকে মনে করতে পারেন নিজের নাম নিজে প্রচার করা উচিত নয় , কোরান ও হাদিসের কথা যারা নামায পড়ে যাকাত দেয়, নিজে ভাল কাজ করে ও অপরকে ভাল কাজ করার উৎসাহ প্রদান করে তাদের চিন্তার কোন কারন নাই ৷ আমি আমরন আল্লাহর ইবাদত ও মানব কল্যাণে কাজ করে মরণকে জয় করতে চাই ৷আপনাদেরকে ও অনুরোধ করব নিজের ভাল কাজ ও আপনার এলাকার সাদা মনের মানুষদের কর্ম তৎপরতা ফেসবুকে তুলে ধরলে সমাজ আলোকিত হবে ৷

হাসান আলী, প্রেসিডেন্ট অর্গানাইজেশন অফ বাংলাদেশী আমেরিকান্স, কনভেনার আমেরিকান মুসলিম পলিটিকেল একশন কমিটি ৷ কনভেনার গ্লোবাল ভিলেজ লিডারশিপ কমিটি ,চেয়ারম্যান আন্তর্জাতিক লেখক ফোরাম নিউইয়র্ক U.S.A.