যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশ সম্পর্ক উন্নয়নে আমাদের ভূমিকা : হাসান আলী

47

যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক স্হাপন করে স্বনির্ভর সোনার বাংলা গড়ে তুলতে দেশপ্রেমিক বাংলাদেশী আমেরিকানদের আহবান জানাচ্ছি ৷ এই কথা বলার অর্থ হল আমরা কেহ আওয়ামী লীগ, কেহ বিএনপি, কেহ জামাত, জাতীয় পার্টি,কেহ জাসদ প্রেমিক ৷ সরকারী দলের লোকেরা অধিকাংশই আখের গোছানোতে ব্যস্ত আর বিরুধী দলে থাকলে কংগ্রেসের সদর দপ্তর ক্যাপিটাল হিলে, হোয়াইট হাউস ও জাতিসংঘে সরকারী দলের দোষত্রুটি বলে ক্ষমতায় যাওয়ার স্বপ্নে বিভুর ৷দেশ প্রেমিক বাংলাদেশী আমেরিকানরা আমেরিকার ৩৩ কোটি জনগনের চাহিদা অনুযায়ী ঔষধ, ফার্নিচার, জুতা, লেদার প্রডাক্ট, গার্মেন্ট ও নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিষ তৈরী করে আমেরিকায় নিয়ে আসতে পারলে সাড়ে ৪ কোটি বেকার লোকের কর্মসংস্হানের ব্যবস্হা হবে অন্যদিকে বাংলাদেশের সস্তা শ্রমকে কাজে লাগাতে পারি ৷আমেরিকায় সাড়ে ৯ লক্ষ বাংলাদেশী আছেন ৷ আমরা প্রত্যেকেই দেশে নিজ নিজ এলাকার ব্যবসায়ীদের সাথে যোগাযোগ করে বানিজ্য বৃদ্ধির উদ্দ্যেগ নিলে , আমেরিকার সাথে বানিজ্য কয়েকগুন বৃদ্ধি করতে পারি ৷ বর্তমানে ৫ বিলিয়ন ডলারের বানিজ্য হয় , অধিকাংশই গার্মেন্ট ৷আমেরিকায় ঔষধের বিরাট বাজার রহেছে ৷আমেরিকা প্রতি বছর ২ হাজার ৪ শত বিলিয়ন ডলারের আমদানী করে ৷ চায়না একাই ৫শত বিলিয়ন ডলারের রপ্তানী করে ৷ আমারা যদি আমেরিকার আমদানী বানিজ্যের ১% রপ্তানী করতে পারি, তাহা হবে ২৪ বিলিয়ন ডলার ৷ বাংলাদেশ বর্তমানে ১৫% টাক্স দিয়ে রপ্তানী করে ৷স্বল্পোনত দেশ হিসাবে টাক্স ফ্রি বানিজ্য সুবিধা পাওয়ার কথা ৷ তবে এই সুবিধা পেতে কংগ্রেসে বিল পাশ করতে হবে ৷ ২০০৫ সালে কংগ্রেসম্যান ক্রাউলীর সহায়তায় কংগ্রেসে একটি বিল উত্থাপিত হয়ে ছিল, বিল নাম্বার H.R.886 কিন্তু লবিং এর অভাবে বিলটি পাশ হয়নি ৷ আমি হাসান আলী, ডাঃ এম এম বিল্লাহ, ফার্মাসিষ্ট আমিন উল্লাহ উদ্দ্যেগ নিয়েছিলাম ৷ আগামী বছর আবার ডিউটি ফ্রি বানিজ্য বিল উত্থাপনে চেষ্টা চালিয়ে যাব ইনশাল্লাহ ৷বাংলাদেশী আমেরিকান প্রত্যেকের প্রতি আবেদন বাংলাদেশের সাড়ে ৪ কোটি বেকার লোকের কর্মসংস্হানের জন্য নিজ নিজ এলাকার কংগ্রেসম্যানের সাথে বিলের বিষয়ে আলোচনা করুন ৷ আমেরিকায় ২ হাজার ৮ শত মসজিদ আছে, নিজ নিজ এলাকার মসজিদে কংগ্রেসম্যানকে আমন্ত্রন জানিয়ে ডিউটি ফ্রি বানিজ্য বিল নিয়ে আলোচনা করলে কাজ সহজ হবে ৷অন্যদিকে আমেরিকান ব্যবসায়ীদের জন্য বাংলাদেশে ইনভেষ্টের বিরাট সুযোগ রহেছে ৷আমেরিকান ব্যবসায়ীরা ঔষধ শিল্পে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার ইনভেষ্ট করে আমেরিকার ৩৩ কোটি মানুষের চাহিদা অনুযায়ী ঔষধ উৎপাদন করে আমিরিকায় রপ্তানী করতে পারে ৷ সবাইকে এই বিষয়ে একটু চিন্তা ভাবনা করতে অনুরোধ জানাচ্ছি ৷ আমার সন্মানিত বন্ধু কবি লিয়াকত আলী (সাবেক এমপি) সাহেব সহ বাংলাদেশী আমেরিকান কবি সাহেবদের অনুরোধ করব কবিতার মাধ্যমে সাড়ে ৯ লক্ষ বাংলাদেশী আমেরিকানদের জাগ্রত করতে অবদান রাখবেন ৷ বাংলাদেশী আমেরিকান কংগ্রেসনাল ককাসের সহযোগিতায় প্রেসিডেন্টকে বাংলাদেশে নেওয়ার চেষ্টা করব সবাই মিলে ৷ আল্লাহ আমাদের সহায় হউন ৷

হাসান আলী, প্রেসিডেন্ট অর্গানাইজেশন অফ বাংলাদেশী আমেরিকান্স, আন্তর্জাতিক লেখক ফোরাম ও আহবায়ক আমেরিকান মুসলিম পলিটিকেল একশন কমিটি( AMPAC).